ওয়ালটন এসিতে ২০ শতাংশ পর্যন্ত ছাড়, ৬ মাসের ইএমআই সুবিধা

  কোন মন্তব্য নেই

 


এয়ার কন্ডিশনার গ্রাহকদের জন্য ‘সুপার সেভিং ডিল’ ক্যাম্পেইন চালাচ্ছে দেশের শীর্ষ ইলেকট্রনিক্স ব্র্যান্ড ওয়ালটন। এর আওতায় ইনভার্টার ও স্মার্ট ইনভার্টারসহ অর্ধশতাধিক নির্দিষ্ট মডেলের এসিতে সর্বোচ্চ ২০ শতাংশ পর্যন্ত ডিসকাউন্ট দিচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি। রয়েছে ফ্রি ইনস্টলেশন সুবিধা। যার ফলে এই ক্যাম্পেইন ব্যাপক গ্রাহকপ্রিয়তা পেয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় এর মেয়াদ বাড়িয়েছে ওয়ালটন।

এদিকে, সারা দেশে ওয়ালটন এসি এক্সচেঞ্জ সুবিধা রয়েছে।  ওয়ালটন প্লাজা ও শোরুমে যে কোনো ব্র্যান্ডের পুরনো এসি জমা দিয়ে ওয়ালটনের নতুন এসি কেনা যাচ্ছে। পুরনো এসি জমা দিয়ে গ্রাহক তার পছন্দকৃত নতুন ওয়ালটন এসিতে ২৫ শতাংশ ছাড় পাচ্ছেন। তবে এই সুবিধা ‘সুপার সেভিং ডিল’-এ কার্যকর নয়।

জানা গেছে, ‘সুপার সেভিং ডিল’ ক্যাম্পেইনের আওতায় ওয়ালটনের রিভারাইন ও ভেনচুরি সিরিজের ১, ১.৫ ও ২ টনের ব্যাপক বিদ্যুৎসাশ্রয়ী ইনভার্টার প্রযুক্তির এসিতে সর্বোচ্চ ১৩ হাজার টাকা পর্যন্ত ছাড় দেওয়া হচ্ছে।  অনলাইনে ই-প্লাজা এবং সারা দেশে ওয়ালটনের যেকোনো আউটলেট থেকে এসি কেনায় এই সুবিধা পাচ্ছেন গ্রাহকরা। রয়েছে ৬ মাসের ইএমআই ও কিস্তি সুবিধা। ক্রেতাদের জন্য এসব সুযোগ থাকছে ২০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত।

ওয়ালটন এসির সেলস ও মনিটরিং বিভাগের ইনচার্জ জাহিদুল ইসলাম জানিয়েছেন, পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী ‘সুপার সেভিং ডিল’ ক্যাম্পেইনটি ২৮ জুলাই থেকে ৩১ আগস্ট পর্যন্ত চলমান ছিল।  কিন্তু গ্রাহকদের কাছ থেকে ব্যাপক সাড়া পাওয়ায় এর সময়সীমা বাড়ানো হয়েছে। এর আওতায় ওয়ালটনের রিভারাইন সিরিজের ১ টনের ৩৬ হাজার ৯০০ টাকার এসিটি কেনা যাচ্ছে ৩২ হাজার ৮৪১ টাকায়, ১.৫ টনের ৪৯ হাজার ৯০০ টাকার এসি ক্রেতারা পাচ্ছেন ৪৪ হাজার ৯১০ টাকায় এবং ২ টনের ৫৬ হাজার ৯০০ টাকার এসি কেনা যাচ্ছে ৫৪ হাজার ৫৫ টাকায়।

তিনি বলেন, একই ক্যাম্পেইনের আওতায় ভেনচুরি সিরিজের ১ টনের ৪৮ হাজার টাকার আয়োনাইজার এসি পাওয়া যাচ্ছে ৩৮ হাজার ৪০০ টাকায়, ১.৫ টনের ৬৫ হাজার টাকার এসি কেনা যাচ্ছে ৫২ হাজার টাকায় এবং ২ টনের ৭৬ হাজার ৪০০ টাকার এসি ক্রেতারা পাচ্ছেন ৬৬ হাজার ৪৬৮ টাকায়। করোনাভাইরাস দুর্যোগের মাঝে এসি ক্রেতাদের বিশেষ সুবিধা দিতেই ওয়ালটনের এ উদ্যোগ।

ওয়লটন এসি আরএনডি (গবেষণা ও উন্নয়ন) বিভাগের প্রধান প্রকৌশলী সন্দ্বীপ বিশ্বাস জানান, ওয়ালটনের সব এসি আন্তর্জাতিক স্ট্যান্ডার্ড মেনে ডিজাইন করা হচ্ছে।  এতে ব্যবহৃত হচ্ছে সঠিক স্পেসিফিকেশনের ক্যাবল বা তার। আন্তর্জাতিক স্ট্যান্ডার্ড মেনে তৈরি ওয়ালটন এসির কম্প্রেসরে ব্যবহৃত হচ্ছে বিশ্বস্বীকৃত সম্পূর্ণ পরিবেশবান্ধব এইচএফসি গ্যাসমুক্ত আর-৪১০এ এবং আর-৩২ রেফ্রিজারেন্ট। রয়েছে টার্বোমুড, ডুয়েল ডিফেন্ডার এবং আয়োনাইজার প্রযুক্তি, যা দ্রুত ঠান্ডা করার পাশাপাশি রুমের বাতাসকে ধুলা-ময়লা ও ব্যাকটেরিয়া থেকে মুক্ত করে। ইভাপোরেটর এবং কন্ডেন্সারে মরিচারোধক গোল্ডেন ফিন কালার প্রযুক্তি ব্যবহার করায় ওয়ালটন এসি অনেক টেকসই, দীর্ঘস্থায়ী ও নিরাপদ।

 

ওয়ালটন এসির চিফ টেকনিক্যাল অফিসার (সিটিও) ওয়ালটার কিম বলেন, আমার ৩০ বছরের অভিজ্ঞতার আলোকে বলছি, ওয়ালটনের ফ্যাক্টরিতে আন্তর্জাতিক মানের এসি তৈরি হচ্ছে। এসিতে বহুমাত্রিক ফিচার ব্যবহার করায় এবং এর উচ্চমান নিশ্চিত করায় বিভিন্ন দেশ থেকে ব্যাপক রপ্তানি আদেশ পাচ্ছে ওয়ালটন।

জানা গেছে, সম্প্রতি ৭০ শতাংশ পর্যন্ত বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী মডেলের এসি বাজারে ছেড়েছে ওয়ালটন।  রিভারাইন সিরিজের ওই মডেলের এসির নাম দেওয়া হয়েছে ‘সুপারসেভার’।  আকর্ষণীয় ডিজাইনের ওই স্পিট এসিতে আরও সংযুক্ত হয়েছে স্মার্ট ইনভার্টার প্রযুক্তিসহ অত্যাধুনিক সব ফিচার। বর্তমানে ১.৫ (দেড়) টনের মডেল বাজারে এলেও খুব শিগগিরই ১ এবং ২ টনের মডেলগুলো পাওয়া যাবে।  দেড় টনের সুপার সেভার মডেলের ওয়ালটন স্মার্ট ইনভার্টার এসিটির দাম মাত্র ৬৬,৪০০ টাকা।

১, ১.৫ এবং ২ টনের স্পিট এসির পাশাপাশি স্কুল-কলেজ, মসজিদ, মাদ্রাসা, হাসপাতাল, হোটেলের মতো মাঝারি স্থাপনার জন্য ৪ ও ৫ টনের ক্যাসেট ও সিলিং টাইপ এসি ব্যাপকভাবে বাজারজাত করছে ওয়ালটন।  বড় স্থাপনার জন্য ওয়ালটনের রয়েছে ভেরিয়্যাবল রেফ্রিজারেন্ট ফ্লো বা ভিআরএফ এবং চিলার।

সারা দেশে ১৭ হাজারেরও বেশি আউটলেটের পাশাপাশি ঘরে বসেই ওয়ালটনের নিজস্ব অনলাইন শপ ‘ই-প্লাজা ডট ওয়ালটনবিডি ডটকম’ https://eplaza.waltonbd.com) থেকে ক্রেতারা তাদের পছন্দের এসি কিনতে পারছেন।

কর্তৃপক্ষ জানায়, ওয়ালটন এসি আন্তর্জাতিকমানের টেস্টিং ল্যাব নাসদাত-ইউটিএস থেকে মান নিয়ন্ত্রণ সনদ পাওয়ার পরে বাজারজাত করা হয়। তাই এসিতে এক বছরের রিপ্লেসমেন্টের পাশাপাশি ইনভার্টার এসির কম্প্রেসরে ১০ বছর পর্যন্ত গ্যারান্টি সুবিধা দিচ্ছে ওয়ালটন।

দ্রুত ও সর্বোত্তম বিক্রয়োত্তর সেবা দিতে আইএসও সনদপ্রাপ্ত সার্ভিস ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমের আওতায় সারা দেশে ওয়ালটনের রয়েছে ৭৪টি সার্ভিস সেন্টার। পাশাপাশি প্রায় ৩০০ সার্ভিস পার্টনারের মাধ্যমে দেশব্যাপী এসির গ্রাহকদের সেবা দিচ্ছে ওয়ালটন।  এদিকে ওয়ালটনের দক্ষ ও অভিজ্ঞ প্রকৌশলী এবং টেকনিশিয়ানরা প্রতি ১০০ দিন পর পর এসির ক্রেতাদের ফ্রি সার্ভিসিং দিচ্ছেন।

কোন মন্তব্য নেই :

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন