যেখানে ঔষধ নয়, মনের জোরেই রোগী সুস্থ হয়!

 আমরা সবাই কমবেশি 'হাতুড়ে ডাক্তার' শব্দটির সাথে পরিচিত। একটা সময় ছিল, যখন এই হাতুড়ে ডাক্তাররাই বিভিন্ন রোগব্যাধি মোকাবেলায় বিশাল জনগোষ্ঠীর প্রধান ভরসাস্থল ছিল। এমনকি খুব গুরুত্বপূর্ণ রোগের ক্ষেত্রেও মানুষ তাদের উপর নির্দ্বিধায় ভরসা করত। কিন্তু সময়ের সাথে সাথে শিক্ষার হার বাড়ছে এবং সাধারণ মানুষ সচেতন হচ্ছে। তাই এখন কেউ অসুস্থ হলে সচরাচর হাতুড়ে ডাক্তারদের কাছে যায় না।

তবে, দুর্ভাগ্যজনকভাবে হাতুড়ে ডাক্তাররা কালের বিবর্তনে হারিয়ে যায়নি বরং এরা আরো শক্তিশালী হয়েছে। কেননা, তারা সম্পূর্ণরূপে নির্মূল হয়নি। এখনকার সময়ের হাতুড়ে ডাক্তাররা আরো ভয়ঙ্কর রূপ ধারণ করেছে, আর তারা বিভিন্ন অভিনব উপায়ে আমাদের সমাজের আনাচে-কানাচে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছে। অসচেতন, অশিক্ষিত ও দুর্বল প্রকৃতির মানুষজনই হচ্ছে তাদের অপচিকিৎসার মূল শিকার। আর এর ফল ভোগ করছে হাজার হাজার নিরীহ মানুষ।

যাহোক, হাতুড়ে ডাক্তার নিয়ে কথা বলা এ লেখার মূল উদ্দেশ্য নয়। আজ কথা হবে হাতুড়ে ডাক্তারের সাথে সম্পর্কিত একটি বিষয় নিয়ে, আর সেটি হচ্ছে প্লাসিবো ইফেক্ট। 


প্লাসিবো ইফেক্ট হচ্ছে, রোগীকে দক্ষতার সাথে এমন ওষুধ বা ব্যবস্থাপনা দেওয়া, যার বাস্তবে রোগের সাথে কোনো সম্পর্কই নেই। কোনো সম্পর্ক তা থাকা সত্ত্বেও বেশিরভাগ সময় রোগী সেই ওষুধ বা ব্যবস্থাপনার কারণে সুস্থতা লাভ করে অথবা ভালো বোধ করে। অবাক লাগছে। তাই না? এখন ভালো করে ভেবে দেখুন তো, এ রকম অভিজ্ঞতার সাথে আমরা অনেকেই প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে পরিচিত কিনা? এর উত্তরও রয়েছে আমাদের আশেপাশেই।

বেদে বা বাইদ্যাদের কথা হয়তো শুনে থাকবেন। এরা এমন এক জনগোষ্ঠী যারা নানান কবিরাজি চিকিৎসার জন্য পরিচিত ছিল। যদিও বর্তমান পরিস্থিতি যথেষ্ট ভিন্ন। সময়ের সাথে সাথে চিকিৎসাবিজ্ঞানে নানাবিধ উন্নতি সাধনের ফলে মানুষ চিকিৎসার জন্য তাদের উপর আস্থা হারিয়ে ফেললেও ইতিহাস ঘাঁটলে দেখা যায় এর উল্টো চিত্র। সাপের কামড়ের চিকিৎসা থেকে শুরু করে দাঁতের পোকা এবং বাতের ব্যথা সহ অসংখ্য রোগের জন্য মানুষ তাদের উপর নির্ভরশীল ছিল।

বর্তমান চিকিৎসাবিজ্ঞান এসব চিকিৎসা পদ্ধতিকে তীব্রভাবে লোক ঠকানোর কাজ হিসেবে অভিহিত করলেও, সাধারণ গ্রামীণ মানুষজন যে তাদের চিকিৎসা থেকে বিন্দুমাত্র উপকৃত হয়নি, তা বলা যায় না। এর কারণও স্পষ্ট। সেটি হল, শুধুমাত্র প্রতারণা করে এভাবে শত শত বছর লোক সমাজে টিকে থাকা মোটেও সহজ নয়।